Health Benefits of Giloy 2021-গিলয় এর স্বাস্থ্যকর বেনিফিট

0
234

গিলয় এর স্বাস্থ্যকর বেনিফিট (Health Benefits of Giloy) সম্বন্ধে আমরা আজ আলোচনা করবো যে,

এটি কোথায় পাওয়া যায় প্রথমত (Firstly) এর থেকে কী কী উপকার হয়।

অমৃতবল্লী (Giloy) একটি ঘন ঝোপঝাড়, যা কখনও শুকনো হয় না। সুতরাং (So) এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায়

এক হাজার ফুট উচ্চতা পর্যন্ত পাওয়া যায়, এর কাণ্ড বেশ ঘন, অনেকটা দড়ির মতো দেখতে।

অন্য দিকে (on the other hand) এর বায়ুবাহিত শিকড়, নরম কান্ড এবং শাখা থেকে উদ্ভূত হয়।

এটিতে হলুদ এবং সবুজ ফুল থোকায় থোকায় দেখা যায়। পাতাগুলি নরম পান আকারের এবং ফলগুলি

মটর জাতীয় গুচ্ছে পরিণত হয়। দ্বিতীয়ত (secondly) এটি কুমাঊ থেকে আসাম ও বার্মা, বিহার ,কোঙ্কন থেকে

কর্ণাটক এবং সিলোন পর্যন্ত ভারতবর্ষে সর্বত্র পাওয়া যায়। এটি ক্রমে যে গাছের উপরে উঠে,গাছের কিছু বৈশিষ্ট্যও

এর মধ্যে বিদ্যমান থাকে। ফলস্বরূপ ( as a result) নিম গাছে চড়া গিলয়কে শ্রেষ্ঠ বলে মনে করা হয়।

গিলয় এর স্বাস্থ্যকর বেনিফিটের (Health Benefits of Giloy) জন্য আরো জানবো যে,

গিলয় বিভিন্ন এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন নামে পরিচিত।

উদাহরণ স্বরূপ (For example) সংস্কৃত ভাষায় -গুড়ুচী, মধুপর্ণী, কুণ্ডলিনী।

হিন্দি ভাষায় — গিলোয়, গুড়ুচি।

মারাঠি ভাষায় — গুলবেল।

গুজরাতি ভাষায় — গলো।

তেলুগু ভাষায় — টপ্পাটিগো বলা হয়।

গুড়ুচী লতা প্রায় জঙ্গল, খেত, রাস্তার পশে,পাহাড়ি জায়গায় কুন্ডলাকারে পাওয়া যায়। যাহোক (however)

এ লতা আম ও নিম গাছে বেশির ভাগ দেখা যায়। মধুপর্ণী লতার ঝুরি বাতাসে দুলতে থাকে, তারপর (after that)

মাটিতে নেমে নতুন গাছের সৃষ্টি করে। এই লতার বীজ সাদা মসৃণ ঝালের বীজের মতো দানা হয়।

গিলয় স্বাস্থ্য উপকারিতায় রাসায়নিক সংগঠন (Health benefits of Giloy chemical organization)

গিলয় লতায় মোটামুটি ১.২ শতাংশ, মাড় ছাড়া আরো অনেক তিক্ত জৈব সক্রিয় সংগঠক পাওয়া যায়।

অমৃতায় (Giloy) গিলোইন নামক এক তিক্ত গ্লুকোসাইড, এছাড়াও (in addition) তিন প্রকারের এক্লোলাইড বিদ্যমান থাকে।

অন্য দিকে (on the other hand) টিনোস্পোরিক, গিলইমিন, ক্যাসমেথিন, পামারিন, রীনাপ্তেরীন নামক সক্রিয় জৈব পদার্থ ও পাওয়া যায়।

গিলয়ের গুণ ও ধর্ম ➥ মধুপর্ণী ত্রিদোষ নাশক হয়ে থাকে, বাত, পিত্ত ও কফ কে সন্তুলন রাখে।

গিলয় সেবনে আমাশাগত অম্লতা কম হয়। হৃদয় কে বলদেয় এবং রক্ত বিকার তথা পান্ডু রোগে বিশেষ উপকার হয়।

অন্য দিকে (on the other hand) কাশি, দুর্বল, প্রমেহ, সুগার, চর্ম রোগ তথা কয়েক প্রকারের জ্বরে উত্তম কাজ করে।

আধুনিক চিকিৎসা শাস্ত্র অনুসারে গিলয় (Health benefits of Giloy) সুক্ষতম বিষাক্ত সমূহ থেকে স্থূল কৃমি পর্যন্ত প্রভাব দেখায়।

দ্বিতীয়ত (secondly) টিবি রোগ উৎপন্ন কারি মাইক্রোব্যক্টিরিয়ম, টিউমার – কুলোসিস জীবাণু বৃদ্ধিকে এটি সফলতা পূর্বক থামিয়ে রাখে।

শরীরের যে কোনো যায়গায় জীবাণু শান্ত অবস্থায় পড়ে থাকলে, গিলয় সেই যায়গায় পৌঁছে জীবাণু ধংস করে দেয়।

গুলবেল শরীরে ইন্সুলিন উৎপন্ন ও রক্তে ঘুলনশীল বাড়ায়, ফলস্বরূপ ( as a result) রক্তে সুগারের মাত্রা কমে যায়।

বিভিন্ন রোগে গিলয় প্রয়োগ (Giloy in various diseases)

বমন (Vomit) ➨ রোদ্রে ঘুরলে ফিরলে বা পিত্তর প্রকোপে বমি আসলে, গিলয়ের রস ১০ থেকে ১৫ গ্রাম,

মিশ্রী ৪ থেকে ৬ গ্রাম মিশিয়ে সকাল ও সন্ধ্যায় সেবন করলে বমি শান্ত হয়ে যায়।

দ্বিতীয়ত (secondly) গিলয় ১২৫ থেকে ২৫০ মি০লি০ রসে ১৫ থেকে ৩০ গ্রাম মধু মিশিয়ে দিনে তিনবার সেবন করলে,

কষ্টের অসাধ্য বমি বন্দ হয়ে থাকে।

নেত্র বিকার (Eye disorders) ➠ অমৃতার (Giloy) রসে ত্রিফলা মিশিয়ে কাড়া বানিয়ে, এর সঙ্গে পিপল চূর্ণ ও মধু মিলিয়ে,

সকাল এবং সন্ধ্যায় সেবন করলে নেত্র জ্যোতি বেড়ে যায়।

দ্বিতীয়ত (secondly) গিলয়ের ১১.৫ গ্রাম রসের সাথে মধু ও সন্ধব লবন (১/১) এক এক গ্রাম মিশিয়ে খুব আচ্ছা খারল করে,

নেত্রাঞ্জন করলে তিমির , পিলল, কাচ, লিংগনাস, শুক্ল ও কৃষ্ণ পটল গত নেত্র রোগ ঠিক হয়।

সর্দিতে গিলয় এর স্বাস্থ্য উপকারিতা (The health benefits of Giloy cold) আডুসাছাল, গিলয়, একটি ছোট বাটির সমান নিয়ে

আধা কিলো জলে জ্বালিয়ে (১/৪) চার ভাগের এক ভাগ থাকতে নামিয়ে ঠান্ডা করুন, ঠান্ডা হলে মধু মিশিয়ে সেবন করলে

শোথ, কাশি, শ্বাস,জ্বর তথা সর্দি ঠিক হয়।

প্রমেহ গিলয়, খস, পাঠানিলোধ, অঞ্জন, লাল চন্দন, নাগরমোথা, আমলকি, হরিতকি, পটলের পাতা, নিমের ছাল, পদ্মকাষ্ঠ

সব প্রকার দ্রব্য সমান ভাগে মিশিয়ে চূর্ণ তৈরী করবে , তারপর (after that) এই চূর্ন ১০ গ্রাম মাত্রায় মধুর সাথে মিশিয়ে

দিনে তিন বার সেবন করলে পিত্তজ প্রমেহ নষ্ট হয়ে থাকে। তদুপরি (moreover) গিলয় আরো বিভিন্ন রোগে রামবান কাজ করে থাকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here