The power of grapes 2021-আঙ্গুরের ক্ষমতা

0
81

হ্যালো বন্ধুরা, আজকের বিষয় (The Power Of Grapes) আঙ্গুরের ক্ষমতা। আঙ্গুর একটি বহুবর্ষায়ু সুদীর্ঘলতার প্রসিদ্ধ ফল।

প্রথমত (Firstly) মাচা তৈরী করে তার উপর আঙ্গুর গাছের চাষ করা হয়। এর পাতা গোলাকার,পঞ্চখণ্ডিও হাতের আকারের হয়,

এবং থোকায় থোকায় ফলের গুচ্ছ হয়ে থাকে। এটি ফলের মধ্যে নির্দোষ এবং সর্বোত্তম।

কেননা এ সবই প্রকার মানুষের জন্য অনুকূল প্রকৃতির (Nature) হয়ে থাকে।

দ্বিতীয়ত (secondly) নিরোগী মানুষের জন্য এটি উত্তম পুষ্টিকর খাদ্য। অন্য দিকে (on the other hand) রোগী মানুষদের জন্য বলবর্ধক পথ্য।

যখন রোগীকে কোনো খাদ্য পদার্থ পথ্য রূপে না দেওয়া যায়, তখন (The Power Of Grapes) মুনাক্কা দেওয়া যেতে পারে।

এছাড়াও (in addition) রং আর আকার তথা বিভিন্ন প্রকারের স্বাদ যুক্ত আঙ্গুর পাওয়া যায়।

উদাহরণ স্বরূপ (For example) কালো আঙ্গুর, বেগুনী রংএর আঙ্গুর, লম্বা আঙ্গুর, ছোট আঙ্গুর, বীজ ছাড়া আঙ্গুর,

যে গুলি শুকিয়ে কিশমিশ তৈরী করা হয়। আরও (further) কালো আঙ্গুর শুকিয়ে মুনাক্কা তৈরী করা হয়।

আঙ্গুরের ক্ষমতায় রাসায়নিক সংগঠন (Chemical organization in the power of grapes)

প্রথমত (Firstly) আঙ্গুরের তাজা পুষ্ট ফলে, গুলুকোজ, টেনিন, টার্টেরিক এসিড, সাইট্রিক এসিড তথা মৌলিক এসিড

এবং বিভিন্ন ক্ষারদ্রব্য, পাওয়া যায়। এছাড়াও (in addition) সোডিয়াম, পটাসিয়াম ক্লোরাইড, পটাসিয়াম সালফেড,

এবং লোহা আদি তত্ব বিদ্যমান থাকে।

দ্বিতীয়ত (secondly) শুকনো ফলে (মুনাক্কায়) চিনি ছাড়া আরও (further) ক্যালসিয়াম, মেগ্নেসিয়াম, পটাসিয়াম, লোহা

এবং ফসফোরাস আদি তত্ব পাওয়া যায়। আঙ্গুর ফলের ছালে টেনিন বিদ্যমান থাকে।

আঙ্গুর ফলের গুণ ও ধর্ম (Quality and religion of grapes)

পাকা ফল:-আঙ্গুরের (The Power Of Grapes)পাকা ফলে রেচক,শীতল, চোখের জন্য উপকারী,

পুষ্টি কারক, রসে মধুর, স্বরকে উত্তম করে থাকে।

অন্যদিকে (on the other hand) কৈষ্ট, মল মূত্র নিষ্কাশিত কারী, বীর্যবর্ধক, পৌষ্টিক, কফ কারক, রুচি কারক হয়ে থাকে।

এছাড়াও (in addition) পিপাসা, জ্বর, হাঁপানি, কাশি, বাত, বাতরক্ত, কমলা, রক্ত পিত্ত, দাহ নষ্ট করি।

কাঁচা আঙ্গুর:- গুণহীন, ভারি এবং কফপিত্ত হারি, আর রক্ত পিত্ত হারি।

কালো দাখ বা গোল মুনাক্কা :- (যাহা ১ থেকে দেড় ইঞ্চি লম্বা গোমাতার স্তনের মতো দেখতে)

তেমনি (Likewise) বীর্য বর্ধক, ভারি এবং কফ পিত্ত নাস করে থাকে।

কিশমিশ:- বিনা বীজয়ালা ছোট কিশমিশ মধুর, শীতল, বীর্য বর্ধক, রুচিকর, টক, শ্বাস, কাশি, জ্বর, হৃদয় পীড়া,

রক্ত পিত্ত, পিপাসা,বাত, পিত্ত এবং মুখের অরুচি দূর করে থাকে।

তাজা ফল:-আঙ্গুরের (The Power Of Grapes) তাজা ফলে রক্ত পাতলা করে, বুকের রোগে তাড়াতাড়ি লাভ পৌছায়,

রক্ত শোধক, জলদি হজম করে এবং শরীরে রক্ত বাড়িয়ে থাকে।

ঔষধীয় প্রয়োগে আঙ্গুর (Grapes in medicinal application)

মুর্চ্ছা রোগ (অজ্ঞান):- ১. দাখ (আঙ্গুর (The Power Of Grapes) এবং আমলকি সমান পরিমান নিয়ে সিদ্ধ ও পিশাই করে

কিছু শুন্ঠি চূর্ণ মিশিয়ে মধুর সাথে চাটলে জ্বর যুক্ত মুর্চ্ছা ঠিক হয়।

২. মিশ্রী, ২৫ গ্রাম মুনাক্কা, বেদনার ছাল এবং খস ১২-১২ গ্রাম, ছোট ছোট টুকরো করে ৫০০ গ্রাম জলে

রাত ভোর ভিজিয়ে রাখবে,তারপর (after that) প্রাতকাল এক সাথে বেটে ৩ ভাগ করে, দিনে ৩ বার সেবন করতে হবে।

৩. তদুপরি (moreover) ১০০ থেকে ২০০ গ্রাম মুনাক্কা, ঘি এর সঙ্গে ভেজে কিছু সন্ধব লবন মিশিয়ে,

প্রতিদিন ৫ থেকে ১০ গ্রাম মাত্রায় সেবন করলে মুর্চ্ছা আসা বন্ধ হয়ে যায়।

বল ও পুষ্টির জন্য:- প্রথমত (Firstly) মুনাক্কা ১২ টি, শুকনো খেজুর ৫ টি, মখানা ৭ টি, এ গুলি এক-

সাথে করে, ২৫০ গ্রাম দুধে মিশিয়ে, ক্ষীর তৈরী করে সেবন করলে, রক্ত ও মাংস বৃদ্ধি পেয়ে শরীর পুষ্ট করে তোলে।

দ্বিতীয়ত (secondly) মুনাক্কা ৯ টি, কিশমিশ ৫টি (The Power Of Grapes), ব্রাহ্মী ৩ গ্রাম, ছোট এলাচি ৮ টি,

খরমুজার গিরি ৩ গ্রাম, বাদাম (Almond) ১০ টি, তথা বাবলা পাতা ৩ গ্রাম, সব মিলিয়ে বেটে,

সেবন করলে শরীর ঠান্ডা হয়, এছাড়াও (in addition) শরীর পুষ্ট ও বলবান হয়ে থাকে ।

তৃতীয়ত (Thirdly) ২০ থেকে ৬০ গ্রাম কিশমিশ রাতে এক কাপ জলে ভিজিয়ে রেখে,

প্রাতকাল চোটকিয়ে ছেকে পান করলে অম্ল পিত্ত ঠিক হয়ে যায়।

চতুর্থত (Fourthly) রাত্রি শয়ন করার পূর্বে বীজ ফেলে দিয়ে মুনাক্কা খেয়ে তারপর জল খেলে কিছু দিনের মধ্যে দুর্বলতা দূর হয়,

এবং শরীর পুষ্ট হয়। বেশি পরিমান খেলে পাতলা পায়খানা হতে পারে, তাই আপনি শারীরিক ক্ষমতা অনুসারে মাত্রা নির্ধারণ করবেন।

পঞ্চম (Fifthly) প্রাতঃ ২০ গ্রাম মুনাক্কা খেয়ে, তার উপর ১২৫ থেকে ২৫০ গ্রাম দুধ খেলে,

জ্বরের পরে দুর্বলতা দুর করে, এবং শরীরে শক্তি বৃদ্ধি হয়।

আরো কিছু রোগে আঙ্গুরের ক্ষমতা (The Power Of Grapes in some other diseases)

রক্ত পিত্ত:-কিশমিশ ১০ গ্রাম, দুধ ১৬০ গ্রাম, জল ৬৪০ মিলিলিটার, তিনই এক সাথে,

অল্প আচে জ্বালিয়ে ১৬০ মিলিলিটার থাকতে, নামিয়ে মিশ্রী মিশিয়ে সেবন করবে।

দ্বিতীয়ত (secondly) মুনাক্কা, মুলেঠী, গিলয়, ১০-১০ গ্রাম নিয়ে ছোট ছোট টুকরো করে,

৫০০ গ্রাম জলে অষ্টমাংশ সিদ্ধ করে সেবন করুন।

এছাড়াও (in addition) আঙ্গুরের (Benefits of Grapes) ৫০ থেকে ১০০ মিলিলিটার রসে ১০ গ্রাম ঘি,

আর ২০ গ্রাম খান্ড (চিনি) মিশিয়ে সেবন কেরলে রক্ত পিত্ত ভালো হয়।

অন্য দিকে (on the other hand) (মুখে দুর্গন্ধ):- কফ বিকৃতি আর অজীর্ণের জন্য মুখে দুর্গন্ধ হয়,

তখন ৫ থেকে ১০ গ্রাম মুনাক্কা নিয়ম পূর্বক খেলে মুখের দুর্গন্ধ দূর হয়ে যায়।

রক্ত বৃদ্ধির জন্য (For blood growth)

(মুনাক্কা ) রাত্রে ১০ থেকে ১২ টি মুনাক্কা ভিজিয়ে রাখুন। ১২ ঘন্টা ভেজানোর পর

বীজ বেরকরে খুব চিবিয়ে চিবিয়ে ২ থেকে ৪ সপ্তাহ সেবন করলে রক্ত বৃদ্ধি হয়ে থাকে। এটি প্রয়োগ করলে রক্ত

পরিষ্কার হয়, অন্য দিকে (on the other hand) নাক দিয়ে রক্ত পড়াও বন্ধ হয়ে যায়। মুনাক্কা বীর্য বৃদ্ধি করে থাকে,

সেই সঙ্গে ফুসফুসের রোগেও লাভ হয়ে থাকে।

(কিশমিশ) ২৫ থেকে ৩০ টি কিশমিশ প্রাতঃ গরম জলদিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন , এবং কাঁচা দুধে ডুবিয়ে রাখুন।

আধঘন্টা থেকে একঘন্টা পর, দুধটি কিশমিশ সহিত ফুটিয়ে নিন। তারপর (after that) প্রথমে কিশমিশ গুলি এক

এক করে খেয়ে গরম দুধ সেবন করুন, এতে রক্ত বৃদ্ধি হয়।

আঙ্গুর:- আঙুরের রস (The Power Of Grapes) ২৫ গ্রাম মাত্রায়ায় সকাল রাত্রে খাবার

আধঘন্টা পার ২ থেকে ৩ সপ্তাহ সেবন করলে রক্ত বৃদ্ধি হয়।

কিছু দিনের মধ্যে পেট ফোলা , হজম না হওয়া, হার্ডএটাক্ট , চক্কর আসা , মাথা ব্যথা , আদি রোগ ঠিক হয়ে যায়।

মহিলাদের জন্য এই প্রয়োগটি বিশেষ ফলদায়ক। অন্য দিকে (on the other hand) তাজা আঙুরের রস কমজোর রোগীদের

জন্য শক্তিবর্ধক। তেমনি (Likewise) এর সেবনে মূত্রস্যের কমজোরি দূর হয় , তথা মূত্র সঠিক পরিমানে হয়ে থাকে।

আঙ্গুর ফুসফুসের বিভিন্ন রোগ থেকে বাঁচায়। দ্বিতীয়ত (secondly) বাচ্চাদের দুর্বলতা দূর করার জন্য , আঙ্গুর সর্বোত্তম ঔষধ।

প্রতিদিন দুপুর বেলা ভোজন করার পর , ২ চামচ আঙুরের রস বাচ্চাদের সেবন করলে বাচ্চা হৃষ্টপুষ্ট হয়। আর চেহারার লালিত্ব

বাড়ে। আঙ্গুর ,কিশমিশ ,মুনাক্কা তে লৌহ তত্ত্ব প্রচুর পরিমানে থাকে ,ফলস্বরূপ ( as a result) রক্তের লোহিত কণিকা (Hemoglobin)

বৃদ্ধি হয়। কিন্তু ডায়াবেটিস (Diabetes) রোগীদের এটি সেবন বর্জিত।

More Link– The Benefits Of Aloe Vera (2021) অ্যালোভেরার উপকারিতা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here